রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এইডস এখন মহামারি, ছড়িয়ে পড়ছে দ্রুত!

0
48

অপরিচ্ছন্ন, অজ্ঞতা ও অশিক্ষা, কু-শিক্ষার কারনে রোহিঙ্গারা আক্রান্ত হচ্ছে বিভিন্ন প্রকার সংক্রামক রোগে। এর মধ্যে এইডস রোগ ছড়িয়ে পড়ছে আশংকাজনভাবে। উখিয়ার স্বাস্থ্য কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, গত ৩ দিনে ৩৫ হাজার কলেরা টিকা খাওয়ানো হয়েছে। ফেব্রুয়ারী মাসে ৯ তারিখ পর্যন্ত এ কর্মসূচী অবহ্যত থাকবে। এছাড়া ডায়ারিয়া, চর্ম, যৌন রোগসহ নানা রোগে জর্জরিত এখানকার বাসিন্দারা। ২০১৭ সালে রোহিঙ্গাদের মধ্যে এই সংখ্যা ছিল ৮৫ জন। বর্তমানে এইডস রোগীর সংখ্যা ৩১৯ জনে দাড়িয়েছে। সাম্প্রতি গণ্যমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, রোহিঙ্গারা আসার মাসখানেক পরে শারীরিক পরীক্ষায় দেখা যায় ৮৫ জনের শরীরে এইচআইভির ভাইরাস। পরের বছর আগস্টে সেটি গিয়ে দাঁড়ায় ২৭৩ জনে। আর ২০১৯ সালের ৮ই মার্চে তা বেড়ে গিয়ে ৩১৯ জনে উন্নীত হয়। এরমধ্যে চিকিৎসা নিচ্ছেন ২৭৭ জন। আর এই এইডস এ মৃত্যু হয়েছে ১৯ জনের। স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যানুসারে গত দুই মাসে কলেরার জীবণু পাওয়া গেছে ৩৫০ রোহিঙ্গার শরীরে। শতাধিক স্থানীয়দের শরীরে মিলেছে এই রোগের জীবানু। এছাড়াও তাদের মধ্যে লক্ষ্য করা যায় নানা ধরণের যৌন ও চর্ম রোগ। রোহিঙ্গার পাশাপাশি স্থানীয়রা ও সংক্রামক রোগে আক্রান্ত হওয়ার অভিযোগ উঠেছে ।

কুতুপালং এলাকার হোপ ইন্টারন্যাশনাল হাসপাতালে এইচআইভি নিয়ে এসেছেন এক নারী। তিনি মিয়ানমারে ভান্তেদের দ্বারা নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। তিনি এই রোগের কথা আগে থেকে জানতেন না। এরপর নানা শারীরিক সমস্যা নিয়ে বারবার হাসপাতালে আসতে শুরু করেন। পরে জানতে পরেন, সে এইচআইভি ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এক নারী এনজিও কর্মীর সহযোগিতায় তার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এই রোগের কারণে রীতিমতো একঘরে হয়ে পড়েছেন তিনি। কেউ তার সঙ্গে থাকতে চায় না। একসঙ্গে খেতে চায় না। তার পরিবারের লোকজন পর্যন্ত কথা বলেন না ঠিকমতো। এইচআইভি আক্রান্ত আরেকজন পুরুষ জানান, তিনি মালয়েশিয়াতে ছিলেন। সেখান থেকে নিয়ে এসেছেন এই রোগ। এইডস’এ আক্রান্ত হবার কারণেই তাকে মালয়েশিয়া থেকে বিতাড়িত করা হয়েছে। তিনি ধারণা করেন, মালয়েশিয়াতে অবৈধ মেলামেশার কারণেই এই রোগ হয়ে থাকতে পারে।

হোপ হাসপাতালের চিকিৎসক রেবেকা জাহান বলেন, এইচআইভি আক্রান্ত রোগীরা যেকোন রোগকেই সাধারণ রোগ ভেবে থাকেন। অনেকেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে আসেননা। আর আসলেও চলেন না পরামর্শ মতো। এছাড়াও ক্যাম্পে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার অন্যতম প্রধান কারণ যৌন জীবনে কোন ধরণের নিয়ম মেনে না চলা। তিনি বলেন, তাদের কবিরাজি ঔষুধ ও ঝাড় ফুকের ওপর প্রবল বিশ্বাস। অধিকাংশ রোগীই হাসপাতালে আসেন রোগ জটিল আকার ধারণ করার পর। তিনি বলেন, ক্যাম্প এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে কলেরা রোগীর সংখ্যা। এই রোগ ছড়িয়ে পড়ার প্রধান কারণ অসেচেতনতা। বিভিন্ন দাতাসংস্থাদের মাধ্যমে দেয়া হয়েছে পানির ট্যাংক। তবে সুপেয় পানি পানে অনীহা রয়েছে তাদের। আর বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন অপরিচ্ছন্ন অবস্থায় টয়লেট ব্যবহারের জন্যও।

ক্যাম্পের চিকিৎসক ড. ইব্রাহীম ইসলামও বলেন অসেচতনতার কথা। তিনি বলেন, একসঙ্গে গাদাগাদি করে থাকার কারণেও নানাবিদ রোগের বিস্তার হচ্ছে। ক্যাম্পে ছড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন ধরণের যৌন রোগ। জানা যায়, ব্যাকটেরিয়াল ভ্যাজাইনোসিস রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন অনেকেই। এই রোগটি মূলত অপরিচ্ছন্নতার কারণে হয়ে থাকে। অধিকাংশ সময়ই এসব রোগ নিয়ে আসতে চাননা তারা। ফলে ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে রোগীর সংখ্যা।

উখিয়া উপজেলার স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: রমজান কুমার দে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জানিয়েছেন, রোহিঙ্গাদের কারনে স্থানীয়রাও বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হতে পারে। যেমন- বর্তমানে স্থানীয়দের কলেরার টিকা খাওয়ানো হচ্ছে। তিনি বলেন, যেকোন রোগে আক্রান্ত হলে সরাসরি হাসপাতারে এসে চিকিৎসকদের পরামর্শ মত চিকিৎসা নেওয়া প্রয়োজন। এইডস্ একটি মারাত্বক ব্যাধি এই রোগটি রোহিঙ্গাদের থেকে ছড়িয়ে পড়েছে। স্থানীয়রাও এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশংকা রয়েছে। তাই যেকোন রোগকে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে চিকিৎসকদের দারস্ত হওয়ার আহবান জানান তিনি।

কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আবদুল মতিন বলেন, রোহিঙ্গারা অধিকাংশই অশিক্ষিত। আর কোন ভালো পরামর্শই গ্রহণ করতে চায় না তারা। ফলে রোগ তাদের নিয়মিত ঘটনায় পরিণত হচ্ছে। আর এইডস মোকাবিলায় আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমাদের দুটি ইউনিট সার্বক্ষণিক কাজ করে যাচ্ছে। অবস্থা উদ্বেগজনক না হলেও তাদের অসেচতনায় রোগ ছড়াচ্ছে। তিনি আরো বলেন, বর্তমানে কলেরার টিকা দেয়া হচ্ছে। কক্সবাজারের ৪ লাখ ৯২ হাজার জনগণ ও দেড় লাখ রোহিঙ্গা শিশুকে এই টিকা দেয়া হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here